006

ধর্ষণের চেষ্টা, দা দিয়ে কুপিয়ে থানায় নারী

সম্ভ্রম বাঁচাতে এক যুবককে দা দিয়ে কুপিয়ে থানায় আত্মসমর্পণ করেছেন এক বিধবা নারী। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ধূপগুড়ির সোনাখালি ফরেস্ট বস্তিতে মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। জখম যুবককে প্রথমে ধুপগুড়ি হাসপাতালে নেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় পরে তাকে জলপাইগুড়ি হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই তার চিকিৎসা চলছে। ধূপগুড়ি থানার আই সি সঞ্জয় দত্ত বলেন, ‘এ দিন দুপুরে সোনাখালি বনবস্তির বাসিন্দা ওই নারী আচমকা থানায় পৌঁছে এক যুবককে দা দিয়ে কোপানোর কথা জানিয়ে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন।’ পুলিশ জানিয়েছে, স্বামীর মৃত্যুর পর বছর দশেকের ছেলেকে নিয়ে দাদুর কাছে থাকেন ওই নারী। কাছেই একটি ছোট চা বাগানে শ্রমিকের কাজ করেন তিনি। এ দিন দুপুরে দাদু ও ছেলের অনুপস্থিতিতে ফুলদাস খড়িয়া নামে ওই যুবক মদ্যপ অবস্থায় বাড়িতে ঢুকে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে বলে ওই নারী অভিযোগ করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে ওই যুবক তাকে কুপ্রস্তাব দিচ্ছিল বলেও অভিযোগ করেন তিনি। নিগৃহীতা জানান, এ দিন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার ছেলে স্কুলে চলে যায়। দাদুও বাড়িতে ছিলেন না। হঠাৎই তার ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে ফুলদাস। তিনি বলেন, ‘বাধা দিলে সে প্রথমে আমাকে একটি লাঠি দিয়ে আঘাত করে। আমি লাঠির আঘাতে পড়ে যাই। সঙ্গে সঙ্গে উঠে সম্ভ্রম বাঁচাতে হাতের কাছে একটি দা পেয়ে নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা করি। কিন্তু আটকাতে না পেরে তার ঘাড়ে কোপ বসাই।’ অভিযুক্ত যুবক ওই নারীর প্রতিবেশী। বাড়িতে স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন, এর আগেও বহুবার মদ্যপ অবস্থায় বিশৃঙ্খলা করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। আইসি জানান, লিখিত কোনো অভিযোগ জমা পড়েনি। ওই নারীর বয়ানের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে। পুলিশের বক্তব্য, জখম যুবক সুস্থ হলে তার বক্তব্য শোনা হবে। প্রতিবেশীদের বয়ানও নেবে পুলিশ। তদন্ত সম্পূর্ণ হলে কারো কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে মামলা দায়ের করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। সূত্র আনন্দবাজার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *